করণ জোহরের  জনপ্রিয় সেলিব্রেটি  শো ‘কফি  উইথ করণ পাঁচ’-এর  অতিথি হয়েছেন শহীদ কাপুর ও মিরা রাজপুত দম্পতি। ২০১৫ সালে শহিদ-মিরার বিয়ে হলেও এটাই  ছিল তাঁদের একসঙ্গে করা প্রথম কোনো টেলিভিশন শো।

শহীদ-মিরার  অনুষ্ঠান  অনেক আগে রেকর্ড  করা হলেও বছরের প্রথম দিন অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করতে চেয়েছিলেন করণ জোহর । তিনি তাঁর ইচ্ছে পূরণও করেছেন। গতকাল রোববার  করণ জোহরের সঙ্গে শহিদ-মিরা জমজমাট আড্ডা দেখতে পেয়েছেন দর্শক।

আড্ডায় তাঁদের নানা আলাপচারিতার মধ্যে শহিদ কাপুর  পারিবারিকভাবে বিয়ে করার চারটি সুবিধার  কথাও  জানিয়েছেন। এমন খবর প্রকাশ করেছে  টাইমস অব ইন্ডিয়া। শহিদ  জানান,  মিরা ও তাঁর বয়সের  ব্যবধানের ব্যাপারে দুজনই খুব সচেতন ছিলেন। এ ছাড়া প্রথম পরিচয়ে তাঁরা যেমন ঘণ্টার পর ঘণ্টা আলাপ করতেন, এখনো সেটা করেন। সময় কীভাবে চলে যাচ্ছে তাঁরা নাকি সেটা টেরই পাচ্ছেন না।

শহিদ বলেন, ‘প্রেম করে বিয়ে করার চেয়ে পারিবারিকভাবে বিয়ে করা তুলনামূলক ভালো।  প্রেমের বিয়ের আকর্ষণ প্রথমে থাকলেও পরে সেটা ধরে রাখা সম্ভব হয় না।  অথচ পারিবারিকভাবে  বিয়ের  ক্ষেত্রে এর  বিপরীত ঘটনা ঘটে। যত দিন যায় তত সঙ্গীকে নতুনভাবে  আবিষ্কার করা যায়। এ ছাড়া একসঙ্গে  বছরের পর বছর কাটালেও ভালোবাসা  কমে না বরং বাড়ে।’

এ বছর মিরা ও শহীদের প্রথম কন্যা সন্তান মিশার জন্ম হয়। এ বিষয়ে শহীদ বলেন, ‘মিরা যখন  অন্তঃসত্ত্বা  হয় তখন আমাদের  প্রেম  আরো গভীর হয়েছিল। আমরা যখন বুঝেছি আমরা  দুজন দুজনকে ভালোবাসি তখন নিজেদের পূর্বের অনেক বিশ্রী ঘটনাও শেয়ার করেছি। এটা বিয়ের দুই মাস পর করেছি। যত ব্যস্ততা ও সমস্যা  থাকুক না কেন আমরা দুজন দুজনের প্রতি অনেক যত্নশীল। ’

করনের অনুষ্ঠানে শহিদ ও মিরা আরো জানান, পরিবারের সদস্যদের সঙ্গ তাদের ভালো লাগে। যেহেতু তাঁরা পরিবারের পছন্দে বিয়ে করেছেন- এ জন্য কোনো ধরনের সামাজিক সমস্যায়  তাঁদের পড়তে হয় না।  মিরা চিন্তা করেন, শহীদের বাবা-মা শুধুই তাঁর শশুর-শ্বাশুড়ি  নন  বরং তাঁর বাবা-মার চেয়েও বেশি কিছু।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here